বিগ্রহসেবা শুধুমাত্র পৌত্তলিকতা নয়, তা হল ভগবানের সেবা


ভগবানের শ্রীবিগ্রহ == অদৃশ্য বিদ্যুৎ শক্তি

10269613_10154094200105375_4301016219570472266_n

উপমা–২:  যদিও জড় পদার্থ দিয়ে বিগ্রহ তৈরী করা হয়েছে,তবুও সেই সকল জড় পদার্থ হল পরমেশ্বর ভগবানের শক্তি এবং সৃষ্টি। তাঁর ইচ্ছায় তিনি স্বীয় শক্তিতে অবতীর্ণ হতে পারেন শ্রীবিগ্রহরূপে। যাতে আমরা আমাদের মন তার প্রেমময়ী সেবাতে কেন্দ্রীভূত করতে পারি। ঠিক যেমন বিদ্যুৎ শক্তি আলোর বাল্বে প্রকাশিত হয়ে আলো বিকিরণ করে। তদ্রুপ শ্রীভগবানও তাঁর শ্রীবিগ্রহকে তাঁর উপস্থিতি দ্বারা পরিপূর্ণ করে তুলতে পারেন। বিদ্যুৎ খালি চোখে দেখা না গেলেও যেমন তাঁকে বাল্বের মাধ্যমে উপলব্ধি করতে হয়, তেমনই পরমেশ্বর ভগবানকে তাঁরই শক্তি বিগ্রহের মাধ্যমে উপলব্ধি করতে হয়। এই সকল কারণে বিগ্রহের উপাসনা করা ও তাঁকে ভগবানের প্রতিভূ বলে স্বীকার করা হয়। কারণ বিগ্রহ জড় পদার্থ দিয়ে তৈরী হলেও ভগবানের উপস্থিতির ফলে তা চিন্ময়ত্ব প্রাপ্ত হয়। ঠিক যেমন বাল্ব আলোক বিহীন হলেও শুধুমাত্র বিদ্যুতের উপস্থিতির ফলেই তা আলোকময় হয়ে ওঠে বা আলো বিকিরণ করে। সেই জন্য ভগবান ভক্তির প্রাথমিক স্তরে আমাদের সঙ্গে আদান-প্রদান করার জন্য এবং আমাদের সেবা গ্রহণ করার জন্য তাঁর বিগ্রহ প্রকাশ করেন অর্থাৎ স্বয়ং বিগ্রহরূপে প্রকাশিত হন। সেই জন্য বিগ্রহ হল পরমেশ্বর ভগবানকে আমাদের প্রেমভক্তি অর্পণ করার জন্য উত্তম আশ্রয়।

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s