প্রশ্ন:- হিন্দুধর্ম বহু প্রাচীন ধর্ম। বহুকাল ধরে পৃথিবীতে স্বগর্বে টিকে থাকার দরুন এই ধর্মের বহুমত ও পথ যেমন রয়েছে তেমনি বহু গ্রন্থ বা শাস্ত্র রয়েছে। প্রশ্ন এই যে যদি কখন দুটি শাস্ত্রের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয় তবে কোনটি গ্রহণযোগ্য হবে, শাস্ত্র এ সম্পর্কে কি বলে?


প্রশ্ন:- হিন্দুধর্ম বহু প্রাচীন ধর্ম। বহুকাল ধরে পৃথিবীতে স্বগর্বে টিকে থাকার দরুন এই ধর্মের বহুমত ও পথ যেমন রয়েছে তেমনি বহু গ্রন্থ বা শাস্ত্র রয়েছে। প্রশ্ন এই যে যদি কখন দুটি শাস্ত্রের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয় তবে কোনটি গ্রহণযোগ্য হবে, শাস্ত্র এ সম্পর্কে কি বলে? 

Image result for hindu shastra
উত্তর :
সনাতন তখা হিন্দুধর্মের শাস্ত্র প্রধানত ২ ধরনের

১. শ্রুতি ( বেদ-বেদান্ত, তখা বেদের সমস্ত ভাগ)
২. স্মৃতি ( বেদ পরবর্তী বিভিন্ন ঋষি ও মহামানবদের দেখানো পথ)
এই দুটির ভিতরে সাংঘর্ষিক কোনো মত দেখা দিলে শ্রুতি গ্রহণযোগ্য ও পালনীয় হবে। এ সম্পর্কে মনুসংহিতায় স্পষ্ট ভাষায় বলা আছে-

অর্থকামেষ্বসক্তানাং ধর্মজ্ঞানং বিধীয়েত।
ধর্মং জিজ্ঞাসসমানানং প্রমাণং পরমং শ্রুতিঃ।। মসুসংহিতা, ২/১৩

অনুবাদ :
যাঁরা অর্থ ও কামে আসক্ত নন, ধর্মের প্রকৃত জ্ঞান তাঁদেরই হয়। আর, ধর্মজিজ্ঞাসু ব্যক্তিগণের কাছে বেদই প্রকৃষ্ট প্রমাণ।যেখানে শ্রুতি ও স্মৃতির মধ্যে বিরোধ উপস্থিত হবে, সেখানে শ্রুতির মত-ই গ্রাহ্য। এই কারণে শ্রুতিকেই সর্বোৎকৃষ্ট প্রমাণ বলা হয়েছে।

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s