প্রশ্ন:- ঋষিগণ জিজ্ঞাসা করলেন- সর্বত্র মূর্তিতেই দেবতাদের পূজা করা হয় (লিঙ্গে নয়), কিন্তু ভগবান শিবের পূজা মূর্তিতে এবং লিঙ্গেও কেন করা হয়?


প্রশ্ন:- ঋষিগণ জিজ্ঞাসা করলেন- সর্বত্র মূর্তিতেই দেবতাদের পূজা করা হয় (লিঙ্গে নয়), কিন্তু ভগবান শিবের পূজা মূর্তিতে এবং লিঙ্গেও কেন করা হয়?

Image result for shiv

সূতদেব বললেন- মুনীশ্বরগণ! তোমাদের এই প্রশ্ন অত্যন্ত পবিত্র এবং রহস্যময়। মহাদেবই এই বিষয়ে বলতে পারেন। অন্য কোনো পুরুষ কখনও কোথাও এটি প্রতিপাদন করতে পারেন না। এই প্রশ্নের সমাধানের জন্য ভগবান শিব যা বলেছিলেন এবং আমার গুরুদেবের মুখে যেমন শুনেছি, সেটিই ক্রমশঃ বর্ণনা করছি। ভগবান শিবই একমাত্র ব্রহ্মরূপ হওয়ায় তাঁকে ‘নিষ্কল’ (নিরাকার) বলা হয়। রূপবান হওয়ায় তাঁকে ‘সকল’ও বলা হয়। তাই তিনি সকল এবং নিষ্কল-দুইই। শিব নিষ্কল-নিরাকার হওয়ায় তাঁর পূজার আধারভূত লিঙ্গও (সংস্কৃত ‘লিঙ্গ’ শব্দের অর্থ ‘প্রতীক’ বা ‘চিহ্ন’) নিরাকার অর্থাৎ লিবলিঙ্গ শিবের নিরাকার স্বরূপের প্রতীক। তেমনই শিব সকল বা সাকার হওয়ায় তাঁর পূজার আধারভূত বিগ্রহ সাকাররূপ। সকল এবং অকল (সমস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গসহ সাকার এবং অঙ্গ-আকার থেকে সর্বতোভাবে রহিত নিরাকার) রূপ হওয়াতেই তিনি ‘ব্রহ্ম’ শব্দ দ্বারা কথিত পরমাত্মা। এইজন্যই সকলে লিঙ্গ (নিরাকার) এবং মূর্তি (সাকার)-দুয়েতেই ভগবান শিবের পূজা করে থাকেন। শিব ব্যতীত অন্য যেসকল দেবতা আছেন, তাঁরা সাক্ষাৎ ব্রহ্ম নন, তাই কোথাও তাঁদের নিরাকার লিঙ্গ দেখা যায় না।

পূর্বকালে প্রাজ্ঞ ব্রহ্মপুত্র সনৎকুমার মন্দরাচলে নন্দিকেশ্বরকে এইরূপ প্রশ্নই করেছিলেন।
সনৎকুমার বলেন- ভগবন্! শিব ব্যতীত অন্য যত দেবতা আছেন, তাঁদের সকলের পূজার জন্য সর্বত্র প্রায়শঃ মূর্তিই অধিক সংখ্যায় দেখা ও শোনা যায়। কেবল ভগবান শিবের পূজাতেই লিঙ্গ ও মূর্তি দুটিরই ব্যবহার দেখা যায়। সুতরাং কল্যাণময় নন্দিকেশ্বর! এই বিষয়ে যে তত্ত্ব কথা আছে, তা আমাকে ভালোভাবে বুঝিয়ে বলুন।

নন্দিকেশ্বর বললেন- নিষ্পাপ ব্রহ্মকুমার! আপনার এই প্রশ্নের উত্তর আমাদের মতো লোকের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়; কারণ এটি গোপনীয় বিষয় এবং লিঙ্গ সাক্ষাৎ ব্রহ্মের প্রতীক, তবুও আপনি শিবভক্ত হওয়ায় ভগবান শিব এই বিষয়ে যা বলেছেন, তা আপনাকে বলছি। ভগবান শিব ব্রহ্মস্বরূপ এবং নিষ্কল (নিরাকার); তাই তাঁর পূজাতেই নিষ্কল লিঙ্গের ব্যবহার হয়, সমস্ত বেদের এই মত।…

[শিবপুরাণ, বিদ্যেশ্বরসংহিতা, ৫-৮ অধ্যায় থেকে হুবহু তুলে ধরা হলো। গীতাপ্রেস গোরক্ষপুর কর্তৃক প্রকাশিত বঙ্গানুবাদ হতে।]

 

Advertisements

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s